মঙ্গলবার, ১৭ মে ২০২২, ০৩:২১ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
মাংকি ট্রায়াল, সমাজ বাস্তবতা ও একজন বিজ্ঞান সমালোচক আবু সাঈদ তুলু মাংকি ট্রায়াল,সমাজ বাস্তবতা ও একজন বিজ্ঞান সমালোচক আবু সাঈদ তুলু কলকাতার অক্ষরবৃত্ত প্রকাশনা থেকে হাসনাইন সাজ্জাদী’র ‘কবিতায় বিজ্ঞান অ-বিজ্ঞান’ প্রকাশিত। আমাজন সহ পাওয়া যাচ্ছে সকল অনলাইন মাধ্যমে ‘ দুর্ঘটনায় পড়লেন বিজ্ঞান কবিতা আন্দোলনের আন্তর্জাতিক শুভেচ্ছা দূত ড. চন্দন বাঙ্গাল আমার কবিতাভাবনা ও বিজ্ঞানকবিতা -হাসনাইন সাজ্জাদী জাতির পিতার জন্য দোয়া কামনার মধ্য দিয়ে বঙ্গবন্ধু টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ার্স এসোসিয়েশনের ইফতার অনুষ্ঠিত জাতির পিতার জন্য দোয়া কামনার মধ্য দিয়ে বঙ্গবন্ধু টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ার্স এসোসিয়েশনের ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত বিশ্বনেতার ১০২তম জন্মদিনে বিনম্র শ্রদ্ধা শতবর্ষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়; নবাব সলিমুল্লাহ ও বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন কবিতাবিজ্ঞান দিয়ে বিশ্বসাহিত্যকে সমৃদ্ধ করেছেন হাসনাইন সাজ্জাদী- এস এম শাহনূর
লাল মঙ্গলের বুকে নামল চীনের রোভার জুরং

লাল মঙ্গলের বুকে নামল চীনের রোভার জুরং

যুক্তরাষ্ট্রের পর দ্বিতীয় দেশ হিসেবে লাল মঙ্গল গ্রহে রোভার নামাতে সাফল্য পেল চীন।

রাষ্ট্রায়ত্ত গণমাধ্যম সিনহুয়া জানিয়েছে, মঙ্গলের উত্তর গোলার্ধের যে বিস্তৃত ভূখণ্ডকে ইউটোপিয়া প্লানিশা নাম দেওয়া হয়েছে, শনিবার ভোরে সেই এলাকায় অবতরণ করে ছয় চাকার সৌরবিদ্যুতচালিত রোবট যান ‘জুরং’।

সিএনএন জানিয়েছে, ২৪০ কেজি ওজনের এই রোবটযানের নাম দেওয়া হয়েছে চীনের অগ্নিদেবতার নামে। এই রোভারে আছে ছয় ধরনের বৈজ্ঞানিক গবেষণার সরঞ্জাম।

ল্যান্ডার থেকে মঙ্গলের মাটিতে নামার পর শুরু হবে জুরংয়ের তিন মাসের অভিযান, যার লক্ষ্য সৌরজগতের চতুর্থ গ্রহে কখনো প্রাণের সঞ্চার হয়েছিল কি না, তা খুঁজে বের করা।

এ লক্ষ্যে শক্তিশালী একটি রাডার ব্যবহার করে মঙ্গলের মাটি, মাটির নিচের পানি ও বরফ এবং বায়ুমণ্ডল পরীক্ষা করবে রোভারটি।

জুরংকে মঙ্গলের মাটিতে বয়ে এসেছে চীনের অরবিটার তিয়ানওয়েন-১। তিয়ানওয়েন বা ‘স্বর্গের প্রতি প্রশ্ন’ নামটি দুই হাজার বছর আগে লিখিত চীনা একটি কবিতা থেকে নেওয়া হয়েছে। মহাকাশযানটি ফেব্রুয়ারিতে মঙ্গলের কক্ষপথে পৌঁছায়।

তখন থেকেই মঙ্গলের চারপাশে ঘুরে ঘুরে ইউটোপিয়া প্লানিশার ওপর জরিপ চালাচ্ছিল অরবিটার তিয়ানওয়েন-১। ওই এলাকার ছবি ‍তুলে চিহ্নিত করার চেষ্টা করছিল- রোভার নামানোর জন্য ঠিক কোন জায়গাটি সবচেয়ে বেশি নিরাপদ।

চীনের এই মঙ্গল অভিযানের সূচনা হয়েছিল গতবছরের ২৩ জুলাই। সেদিনই একটি লংমার্চ-৫ রকেট চীনের মার্স অরবিটার তিয়ানওয়েন-১ কে নিয়ে রওনা হয় মহাকাশে।

দীর্ঘ সাত মাসের যাত্রা শেষে তিয়ানওয়েন-১ ফেব্রুয়ারিতে মঙ্গলের কক্ষপথে প্রবেশ করে সেটিকে প্রদক্ষিণ করতে শুরু করে।

এটি মঙ্গলে চীনের প্রথম স্বনির্ভর মিশন। এর আগে ২০১১ সালে রাশিয়ার সঙ্গে যৌথভাবে আরেকটি অনুসন্ধানযান উৎক্ষেপণের চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়েছিল চীন।

যদি জুরংকে সফলভাবে ল্যান্ডার থেকে নামিয়ে মঙ্গলের পৃষ্ঠে মোতায়েন করা যায়, তাহলে প্রথম মিশনেই মঙ্গলের কক্ষপথে প্রবেশ, অবতরণ ও একটি রোভার ছাড়তে সফল হওয়া প্রথম দেশ হবে চীন।

তিয়ানওয়েন-১ ফেব্রুয়ারিতে মঙ্গলে পৌঁছানো তিনটি অরবিটারের একটি। এর আগে ১৮ ফেব্রুয়ারি যুক্তরাষ্ট্রের রোভার পারসাভেরেন্স, সফলভাবে মঙ্গলের জেজেরো খাদে নামে, এ জায়গাটি ইউটোপিয়া প্লানিশা থেকে দুই হাজার কিলোমিটারেরও বেশি দূরে।

একই মাসে সংযুক্ত আরব আমিরতের পাঠানো হোপ অরবিটাল মঙ্গলের কক্ষপথে প্রবেশ করে। তবে এর নকশা মঙ্গলের পৃষ্ঠে অবতরণ করার মতো নয়। এটি উপর থেকে মঙ্গলকে প্রদক্ষিণ করে গ্রহটির আবহাওয়া ও বায়ুমণ্ডলের তথ্য সংগ্রহ করছে।

 

এই সংবাদটি শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




themesbazar_brekingnews1*5k
© All rights reserved © 2020
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Jp Host BD