শনিবার, ২৩ অক্টোবর ২০২১, ০৮:৪৯ পূর্বাহ্ন

প্লেটোর সাহিত্যতত্ত্ব -এইচ বি রিতা

প্লেটোর সাহিত্যতত্ত্ব -এইচ বি রিতা

সাহিত্য সমালোচনায় প্লেটো
এইচ বি রিতা

সাহিত্য সমাজের খুব গুরুত্বপূ একট অংশ। সাহিত্যের উপাদানগুলির লক্ষ্য, দর্শকদের কাছে নৈতিক গুণাবলীর উপর নির্ভরকরার একটি মৌলিক উদ্দেশ্য। সাহিত্য উপাদান থেকে নৈতিক পাঠের প্রত্যাশা করা সুস্পষ্ট বলে মনে হলেও, সাহিত্যিক উপাদানের সমালোচনা বিশ্লেষণে নেতিবাচক প্রভাবগুলিও রয়েছে। সাহিত্যের প্রভাব নিয়ে বিতর্কিত সমালোচনা, মহান দার্শনিক প্লেটো এবং অ্যারিস্টটলকে সমাজে সাহিত্যের প্রভাবগুলি থেকে অনেকটা পৃথক করে তুলেছিল।

সমালোচনা শব্দটাকে আমরা প্রায়শই নেতিবাচক ভাবে গ্রহণ করে থাকি। বিরূপভাবে কথা বলা বা অযৌক্তিকভাবে চাটুকারিতা, আঘাত করাকে বুঝে থাকি। মূলত সমালোচনা সাহিত্যের একটা উল্লেখযোগ্য বিভাগ৷ যে কোন সাবজেক্ট মেটার বা চেক্সটকে যৌক্তিক ভাবে ব্যাখ্যা-বিশ্লেষণসহ উপস্থাপন করাই সাহিত্য সমালোচনা। সেটা ইতিবাচক কিংবা নেতিবাচক উভয়ই হতে পারে।

সাহিত্য কিংবা একটি শিল্পকর্মকে ব্যাখ্যা-বিশ্লেষণ করার জন্য গ্রহণযোগ্য দৃষ্টিভঙ্গিগুলোকে বলা হয় সাহিত্যতত্ত্ব। এবং সাহিত্যতত্ত্বের মাধ্যমেই অনেক লেখক, কবি, পণ্ডিতরা সাহিত্যকে মূল্যায়ন করে থাকেন। যদিও সাহিত্য তত্ত্ব ও সাহিত্য সমালোচনা একে অপরের সাথে জড়িত, তবে দুটির মাঝে সামান্য পার্থক্য রয়েছে। সাহিত্যের সমালোচনা বলতে সাহিত্যের অধ্যয়ন, মূল্যায়ন এবং ব্যাখ্যা বুঝানো হয়। অন্যদিকে সাহিত্য তত্ত্বটি নির্দিষ্ট কোন কাজের মূল্যায়ন ও ব্যাখ্যার জন্য ব্যবহৃত বিভিন্ন কাঠামোকে বুঝানো হয়।

সাহিত্য তত্ত্ব সম্পর্কে চিন্তাভাবনার একটি খুব প্রাথমিক উপায় হ’ল, সমসাময়িক দৃষ্টিভঙ্গিতে ধারণাগুলি বিভিন্ন সমালোচকদের শিল্প, সাহিত্য এবং এমনকি সংস্কৃতি দেখার জন্য এবং কথা বলার জন্য ব্যবহার করা। বিভিন্ন দৃষ্টিভঙ্গিগুলো সমালোচকদের সেই তত্ত্বের নির্দিষ্ট অনুমানের ভিত্তিতে শিল্পের কাজগুলি বিবেচনা করার অনুমতি দেয়। উদাহরণস্বরূপ, যদি কোনও সমালোচক কিছু নির্দিষ্ট মার্ক্সবাদী তত্ত্বের সাথে কাজ করেন, তবে তিনি গল্পের চরিত্রগুলি কীভাবে তাদের অর্থনৈতিক পরিস্থিতির উপর ভিত্তি করে মিথস্ক্রিয়া করবে, তার উপর মনোনিবেশ করতে পারবেন। যদি কোনও সমালোচক উত্তর-ঔপনিবেশিক তত্ত্ব নিয়ে কাজ করে থাকেন তবে তিনি সমালোচনার জন্য একই গল্পটি বিবেচনা করতে পারবেন, তবে সেখানে ঔপনিবেশিক শক্তিগুলি (ব্রিটেন, ফ্রান্স, এমনকী আমেরিকা) কিভাবে আফ্রিকা বা ক্যারিবিয়ান অঞ্চলের চরিত্রগুলিরর সাথে মিথস্ক্রিয়া করবে, তা দেখবেন।

খ্রিস্টের জন্মেরও চারশবছর আগে উপলব্ধি করা হয়েছিল মানুষের সৃজনশীলতা। উপলব্ধি করেছিলেন গ্রিসের বিখ্যাত দার্শনিকরাও। প্লেটো এবং অ্যারিস্টটল সমাজে সাহিত্যের ভূমিকা সম্পর্কে তাদের পদ্ধতির বিষয়ে সম্পূর্ণ পৃথক তত্ত্ব উপস্থাপন করে গেছেন।
লেইচ এবং ম্যাকগোয়ান অনুসারে, প্লেটো এবং অ্যারিস্টটল উভয়ই ভিন্ন ভিন্ন দৃষ্টিকোণ থেকে সমালোচকদের কাছে পরিচিত।যেমন, সংলাপের বিন্যাসে চিত্রিত আদর্শিক অনুক্ষামূলক দৃষ্টিভঙ্গি থেকে প্লেটো এবং প্রবন্ধের বিন্যাসে বাস্তববাদী, ব্যবহারিক এবং প্ররোচক দৃষ্টিভঙ্গি থেকে অ্যারিস্টটল। প্লেটো এবং অ্যারিস্টটল দুজনেই বুঝতে পেরেছিলেন যে, ব্যক্তি ও সমাজে সাহিত্যের দীর্ঘস্থায়ী সংবেদনশীল উদ্দীপক প্রভাব রয়েছে। তবে প্রভাবগুলি ইতিবাচক বা নেতিবাচক কিনা, তা নিয়ে তারা পৃথক ছিল।

সাহিত্য সমালোচনায় প্লেটোর যুক্তি ছিল যে, সাহিত্য ব্যক্তি এবং সমাজের জন্য নেতিবাচক প্রভাব ফেলে। প্লেটো বিশ্বাস করেছিলেন যে, কবিতা সমাজকে কলুষিত করে এবং লুণ্ঠন করে। কারণ কবিতা আমাদেরকে অনৈতিকতা, মন্দ, খারাপ আচরণ এবং বর্বরতা শেখায়। কবিতার চরিত্রগুলি মিথ্যা কথা বলে, প্রতারণা করে এবং মানুষকে নির্যাতনের মাধ্যমে উপভোগ করে। তাই তিনি মনে করতেন, কবিতা বিপজ্জনক এবং বাস্তব থেকে আমাদেরকে আরও দুরে নিয়ে যায়।

সাহিত্য সম্পর্কে তার এই উপলদ্ধি মূলত তাঁর সংলাপ বিন্যাসের (ডায়লগ ফর্ম্যাট) ভিত্তিতে তৈরি হয়েছিল। সংলাপ মূলত সাহিত্যিক রচনায় দুটি চরিত্রের মধ্যকার কথোপকথন। সাধারণ কথোপকথন থেকে সংলাপের বৈশিষ্ট্য এই যে, এটি পূর্বপরিকল্পিত এবং এর মাধ্যমে রচনাকারী কোন একটা প্রতিপাদ্যকে ধারাবাহিকভাবে প্রমাণের স্তরে নিয়ে যেতে পারেন।

সাহিত্য বিশ্লেষণে প্লেটো যুক্তি দিয়েছিলেন যে, কবিতা সমাজে অনাকাঙ্ক্ষিত আবেগকে অনুপ্রাণিত করে এবং এটির দীর্ঘস্থায়ী ক্ষতিকারক পরিণতির ভয়ে, প্রাপ্তবয়স্কদের এবং বিশেষত শিশুদের কাছ থেকে সরিয়ে নেয়া উচিত” (Leitch and Mcgowan 3)।ক্ষতিকারক পরিণতির কারণ হ’ল আবেগের দুর্বল নিয়ন্ত্রণ, যার ফলে শিশুরা বেশি সংবেদনশীল হয়। কারণ তারা আবেগগত এবং মানসিক ভাবে অপরিপক্ক।

প্লেটো আরও ব্যাখ্যা করেছিলেন যে, বাচ্চাদের অবশ্যই ভীতিজনক গল্প এবং ভয়ঙ্কর গল্পগুলি শুনানো উচিত নয়, কারণ এগুলো দৃঢ়ভাবে নেতিবাচক গভীর আবেগকে উৎসাহিত করে যা শিশুদের ভয় বাড়ায় এবং তাদের জীবনে সাহস হারিয়ে ফেলতে সাহায্য করে। অন্যদিকে, সাহিত্য হাসিকে দৃঢ়ভাবে অনুপ্রাণিত করে, যা তীব্র সংবেদনশীল প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করে এবং এটি ক্ষতিকারক।

প্লেটোর যুক্তিটি হ’ল, ‘নিয়ন্ত্রণের বাইরে ছিটকে যাওয়া এবং অপূরণীয় ক্ষতি তৈরি করার ভয়ে সকল প্রকারের দৃঢ় আবেগকে এড়িয়ে চলতে হবে “(লেইচ এবং ম্যাকগোয়ান)। অর্থাৎ, সাহিত্যের উদ্দীপক প্রভাবগুলি মনে, বিশেষত বাচ্চাদের মনে স্থায়ী পরিণতি ডাকে এবং প্রভাবগুলি সংবেদনশীলভাবে দূর্বল বা শক্তিশালী কিনা তা নির্ধারণ করে।

তাই প্লেটো বিশ্বাস করেছিলেন যে, যদিও সাহিত্যের ইতিবাচক প্রভাব রয়েছে, তবে এটি সমাজের নৈতিক নৈতিকতা এবং মূল্যবোধের উপর আরও বেশী নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে।
বলা হয় প্রায় আড়াই হাজার বছর ধরে পুব-পশ্চিমের চিন্তাজগৎকে প্রভাবিত করে চলেছে যে গ্রিক দর্শন, তার অনেকটাই রূপায়িত হয়েছে প্লেটোর দ্বারা। পশ্চিমা দর্শনের ভিত রচনাকারী তিনজন প্রভাবশালী দার্শনিকের মধ্যে একজন হলেন প্লেটো। বাকিরা হলেন সক্রেটিস, এবং অ্যারিস্টটল। দার্শনিক সক্রেটিস এর ছাত্র ছিলেন প্লেটো। আবার প্লেটোর ছাত্র ছিলেন দার্শনিক অ্যারিস্টটল। পশ্চিমা বিশ্বে উচ্চশিক্ষার প্রথম প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলা প্লেটো গণিতজ্ঞ এবং দার্শনিক ভাষ্যের রচয়িতা হিসেবে খ্যাত।

প্লেটো দর্শন বুঝতে হলে তাঁর ‘থিওরি অফ ফর্ম’ আগে জানতে হবে। প্লেটোর থিওরি অফ ফর্ম দৃঢ়ভাবে জানায় যে, প্রকৃত জগতটি সত্যই ‘আসল’ জগত নয়; পরিবর্তে, আসল বাস্তবতা আমাদের শারীরিক জগতের বাইরে রয়েছে। কিছু জ্যামিতিক বিমূর্ত ধারণায় আমাদের ইন্দ্রিয়ের ঊর্ধ্বে থাকা আকৃতিকে আমরা আমাদের মতো করে অনুভব করি। আমরা আমাদের ইন্দ্রিয়ের মাধ্যমে সীমাবদ্ধ।

প্লেটো তাঁর এই তত্ত্বটি বেশ কয়েকটি ভিন্ন ডায়লগে আলোচনা করেছেন। তার মধ্যে ‘দ্য রিপাবলিক’ অন্যতম।
রিপাবলিক একটি সামগ্রিক তত্ত্বগ্রন্থ যেখানে আমরা প্লেটোর অধিবিদ্যা, ধর্মতত্ত্ব, নীতিতত্ত্ব, মনোবিদ্যা, শিক্ষা, রাষ্ট্র, এবং শিল্পতত্ত্বের ধারণা পাই। প্লেটো তার পরামর্শদাতা সক্রেটিসের কাছ থেকে এই তত্ত্বের কিছুটা উত্তরাধিকারসূত্রে পেয়েছিলেন।
বাস্তব বুদ্ধিসম্পন্ন দার্শনিক প্লেটো আবেগ নয়, ‘সদগুণই জ্ঞান’ বলে বিশ্বাস করতেন। প্লেটোর দর্শন বুঝতে হলে আমাদেরকে প্লেটোর মেটাফিজিক্স (অধিবিদ্যা) এবং এপিস্টেমোলজি (জ্ঞানবিজ্ঞান) দিকে সামান্য নজর দিতে হবে।

গ্রীক ‘মেটা টা ফিজিকা’ থেকে মেটাফিজিক্স শব্দটি এসেছে, যা মতবাদ, বা মানবিক ধারণা উপলব্ধির বাইরে বাস্তবতার উল্লেখকরে। মেটাফিজিক্স কোনো বিষয়কে তাত্ত্বিক বা অন্তর্গত দিক থেকে দেখার চেষ্টা করে, অর্থাৎ বাস্তবতার সর্বাধিক সাধারণ বৈশিষ্ট্যগুলি, যেমন, অস্তিত্ব, সময়, বস্তু এবং তাদের বৈশিষ্ট্য, পুরোপুরি এবং অংশ, ঘটনা, প্রক্রিয়া এবং কারণ, মন এবং শরীরের মধ্যে সম্পর্ক ইত্যাদি অধ্যয়ন করে। মেটাফিজিক্সে সৃষ্টিতত্ত্ব (cosmology) এবং তত্ত্ববিদ্যা (ontology) দুটি শাখা রয়েছে যাতে মহাজাগতিক বিজ্ঞান, তার সম্পূর্ণতা এবং বিশ্বের গবেষণা, সত্তার অধ্যয়ন অন্তর্ভুক্ত।

এপিস্টেমোলজি হচ্ছে দর্শনের জ্ঞান অধ্যয়নের একটি শাখা যা প্লেটোর সব সংলাপে লক্ষ্যনীয়। জ্ঞানবিজ্ঞানীরা এতে জ্ঞান সম্পন্ নসকল জ্ঞানীয় উৎস পরীক্ষা করে যা অনুধাবনমূলক অভিজ্ঞতা, কারণ, স্মৃতি এবং সাক্ষ্যসহ অন্তর্ভুক্ত থাকে। তারা সত্য, বিশ্বাস, ন্যায্যতা এবং যৌক্তিকতার প্রকৃতি সম্পর্কে প্রশ্নগুলিও অনুসন্ধান করে।

শুধুমাত্র ইন্দ্রিয় দ্বারা পৃথিবী দেখাকে সত্যি না ভাবা প্লেটো সত্যের বিষয়ে মেটাফিজিক্স ধারণায় সর্বাধিক বিখ্যাত রচনা করেছেন- ‘the allegory of the Cave’ বা ‘গুহার রূপক’, যা তাঁর রিপাবলিক বইয়ের সপ্তম-এ পাওয়া। গুহার রূপকথায়, যেখানে একটা প্যারাডক্স রয়েছে, তিনি গুহার প্রাচীরের বেঞ্চে বেঁধে রাখা বন্দীদের বর্ণনা করেছেন যারা দাঁড়িয়ে আছে গুহার দেয়াল মুখী হয়ে।তাদের পেছনে রয়েছে আগুন যা তারা দেখতে পাচ্ছেনা। তারা সামনের দিকটা ছাড়া অন্য কোন দিকে মুখ ঘুরাতে পারছেন না।এবং আগুন ও প্রাচীরের মধ্য দিয়ে চলাচল করা অভিনেতারা তাদের জন্য একটি চিত্র বহন করছে। সুতরাং, তারা কেবল সেই চিত্রটির ছায়া দেখতে পাচ্ছে। তারা ভাবছে যে, তারা বাস্তবতা দেখছে। কিন্তু মূলত তারা যা দেখছে, তা কোনও চিত্রের, চিত্র ছাড়া আর কিছু নয়। প্লেটো বুঝাতে চেয়েছেন যে, একজন গুহাবাসী যিনি গুহার বাইরে কোনদিন বের হননি, তার কাছে সেই গুহাটাই সম্পূর্ণ পৃথিবী। অনুরূপ আমরাও আমাদের ইন্দ্রিয় গোচরে যা কিছু দেখি, তার ঊর্ধ্বে কিছুই অনুভব করতে পারিনা।প্লেটোর বিশ্বাসে ইন্দ্রিয়ের ঊর্ধ্বেও চিরস্থায়ী একটি জগত আছে, যা কেবল আমরা সীমানা থেকে মুক্ত হতে পারলেই দেখতে পারবো।এজগতের উপলব্ধিই সত্যিকারের জ্ঞান, আমাদের অনুভূতি, আসলে জ্ঞান নয়!

সূতরাং, প্লেটো, যিনি সক্রেটিসকে যথাযথভাবে অনুসরণ করতে চেয়েছিলেন, তার পক্ষে শিল্প কখনই বাস্তবের প্রতিনিধিত্ব করেনি। কারণ তিনি ভাবতেন, জীবন যদি নিজেকে বাস্তবের নিছক চিত্র হিসাবে প্রদর্শন করে, তবে শিল্প কেবল একটি অনুলিপি, যা বাস্তবতার প্রতিনিধিত্ব করতে পারেনা। আমাদের পৃথিবী আমরা অনুভব করি কেবল মায়ায়, যা দেওয়ালের ছায়ার মতো কেবল উপস্থিতি।

প্লেটোর মেটাফিজিক্স এবং এপিস্টেমোলজি ধারণাগুলো তাকে শিল্পীদের প্রতি একটা সাধারণভাবে ধারণা তৈরী করিয়েছিল যে, শিল্পীরা সমাজের জন্য ক্ষতিকর। তাই তিনি শিল্পীদের অনেকটা ড্রাইভিং কৌশল ‘সর্ট শিফটিং’ এর মতই সর্বাধিক ইঞ্জিন আরপিএম (RPM) পর্যন্ত পৌঁছে মূল্যবান ত্বরণের সময় হারানোর আগেই গিয়ারটি পরিবর্তন করতে চেয়েছিলেন। সেই মেটাফিজিক্স এবং এপিস্টেমোলজি বর্বরতার সাথে সরলীকৃত সংক্ষিপ্ত বিবরণ দেওয়ার জন্য, আমি বলব যে, প্লেটো এমন একটিআদর্শ বস্তুর রাজত্ব তৈরি করেছিলেন, যা আমাদের সাধারণ জীবন-যাপন বা চলতি পথে বিশ্বের সাথে পরিচিত ছিলনা। প্লেটোর আদর্শ বস্তু মহাবিশ্বের চূড়ান্ত বাস্তবতা গঠন করে। আমরা যে পৃথিবী দেখি, তা আদর্শ বিশ্বে ত্রুটিযুক্ত এবং অসম্পূর্ণ মডেল উপস্থাপনা করে। শিল্পীরা যখন আমাদের বিশ্বের নিত্য চলাচলের জিনিসগুলিকে তাদের প্রাথমিক ক্রিয়া-কলাপগুলির একটিহিসাবে প্রতিনিধিত্ব করেন, প্লেটো তখন শিল্পীর উপস্থাপনের প্রতিনিধিত্ব বা কপির অনুলিপি হিসাবে কাজ করেন। প্লেটোর পশ্চিমা মানুষের বৌদ্ধিক ও রাজনৈতিক জীবনের উপর প্রভাব অপরিসীম। জ্ঞানের প্রকৃতি এবং মহাবিশ্বের প্রকৃতি সম্পর্কে তাঁর মতামত, সাহিত্যের ও সাহিত্যিক সমালোচনার উপর তাঁর প্রভাবকে সীমাবদ্ধ করার একটা ষড়যন্ত্র মাত্র।

প্লেটো-ই হলেন প্রথম গ্রিক দার্শনিক যিনি কঠিন বিচার-বিশ্লেষণের মাধ্যমে জগতকে দেখতেন। যে কোন বিষয় সম্পর্কে যুক্তি দিতে তিনি সর্বদা প্রস্তুত ছিলেন। সাহিত্যের ক্ষেত্রেও তিনি যথেষ্ট যুক্তি দ্বারা সমালোচনা করেছেন। কবিতা ও নাটকের একজন সফললেখক এবং শিল্পী হিসাবে বিস্তৃত স্বীকৃত প্রতিভা থাকা সত্ত্বেও, সক্রেটিস প্লাটোনিসের সাথে দেখা করার পরে, প্লেটো শিল্পকে ত্যাগ করেছিলেন এবং সক্রেটিস কর্তৃক প্রদত্ত ছাঁকনামূলক নীতি গ্রহণ করেছিলেন।

প্লেটো বিশ্বাস করেছিলেন যে, এই পৃথিবীতে সমস্ত কিছুই কেবল অপূর্ণ-নকল। সুতরাং, সত্য বা ন্যায়বিচার, দুটি বিষয়েই প্লেটো বিস্তৃতভাবে – চমৎকার গদ্য উপায় দ্বারা যা লিখেছিলেন, তা কেবলমাত্র তাঁর ফর্মের (বা ইউনিভার্সাল) ওয়ার্ল্ড বোঝার মাধ্যমেই বোধগম্য। শিল্প, যা সাধারণ জীবনের বস্তু এবং ঘটনাকে অনুকরণ করে, তা একটি ফর্মের অনুলিপিটির কেবল একটি অনুলিপি বলেই তিনি বিশ্বাস করতেন। শিল্পের কাজগুলি সাধারণ অভিজ্ঞতার চেয়ে একটি মায়াও ধরা যায়। সুতরাং, প্লেটো অনুসারে, শিল্পকর্মগুলি সর্বোত্তম বিনোদন এবং সবচেয়ে খারাপ দিক থেকে একটি বিপজ্জনক বিভ্রম।

প্লেটোর পক্ষে একমাত্র আসল বাস্তবতা হ’ল রূপের অপরিবর্তনীয় পৃথিবী, এটি একটি সর্বোচ্চ জীব দ্বারা নির্মিত। এই পৃথিবীর সবকিছুই এই প্রতিটি ফর্মের এক একটি অনুলিপি। সত্যিকারের জ্ঞান অর্জনের জন্য, আমাদের গুহা থেকে মুক্ত হতে হবে এবং বাইরের প্রকৃত পৃথিবী উপভোগ করতে প্রয়োজনীয় জিনিসগুলো দেখতে হবে।

শিল্প-সাহিত্যে হ’ল একটি সম্ভাবনা। আমরা যে দৃষ্টিভঙ্গি দিয়ে একটি পাঠ্যকে পাঠ করছি, তার বাইরে ভিন্ন দৃষ্টিকোণ থেকে আরওকী কী সম্ভাব্য পাঠ্য হতে পারে, সেগুলো বিবেচনা করে সমালোচনা করাই ছিল প্লেটোর সাহিত্য সমালোচনা।

সাহিত্যের সামগ্রীর সমালোচনা বিশ্লেষণ থেকে আমরা জানতে পারি যে, সাহিত্যে এমন অন্তর্নিহিত নেতিবাচক কিছু প্রভাব রয়েছেযা শিশুদের জন্য ক্ষতিকারক পরিণতি ঘটাতে পারে। শিশুদের দেওয়া সাহিত্যের উপকরণ বা সাহিত্যের উপস্থাপনাগুলির জন্য শিশুদের বয়স বিবেচনার সাথে যত্ন সহকারে নির্বাচন করা দরকার। প্লেটোর বিভিন্ন যুক্তি ব্যক্তিজীবন এবং সমাজের ভবিষ্যত গঠনে সাহিত্যের গুরুত্ব প্রকাশ করেছে।

ভিনসেন্ট বি লেইচ, উইলিয়াম ই কেইন, লরি এ ফিন্কে, বারবারাই জনসন, জন ম্যাকগোয়ান, এবং জেফ্রি জে উইলিয়ামস এর সম্পাদনায় ২৮৪৬ পষ্ঠার ‘দ্য নর্টন এ্যান্থোলজি থিউরী এন্ড ক্রিটিসিজম’ গবেষণামূলক বইটি পড়ে নেয়ার পর যে কেউ সাহিত্যের তত্ত্বের বিকাশ এবং বর্তমানের অবস্থা্টি অনেকটাই বুঝতে পারবেন। ক্লালাসিকাল যুগ থেকে আজ অবধি সবচেয়ে প্রভাবশালী সমালোচনামূলক বিবৃতিগুলিকে বিস্ময়করভাবে বিচিত্র সংগ্রহে উপস্থাপন করা হয়েছে বইটিতে। এর তৃতীয় সংস্করণটিতে ১৫১জন লেখকের দ্বারা ১৯১টি খণ্ড দেয়া হয়েছে। এটি অন্য যে কোনও নৃতাত্ত্বিক নির্বাচনের তুলনায় আরও বিস্তৃত এবং বিচিত্র। বেশিরভাগ বিংশ এবং একবিংশ শতাব্দীর উপর কেন্দ্রীভূত আটচল্লিশটি নতুন তত্ত্বের ইতিহাসের সেরা ওভার ভিউ রয়েছে বইটিতে। এছাড়াও আজকের তত্ত্বের রাষ্ট্রের একটি উল্লেখযোগ্য আপ-টু-ডেট প্রতিকৃতিও করে তুলে ধরা হয়েছে এতে।

এই সংবাদটি শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




themesbazar_brekingnews1*5k
© All rights reserved © 2020
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Jp Host BD