রবিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২২, ০৭:০১ অপরাহ্ন

শিরোনাম :
সম্মানসূচক ডক্টরেট ডিগ্রি লাভ গবেষক এস এম শাহনূরের তিন দিনের ট্যুরিস্ট মেলায় টুরিস্ট পুলিশের সরব উপস্থিতি ভারতীয় পর্যটকদের বরণ করে নিল ট্যুরিস্ট পুলিশ আজ চাষারপুত খ্যাত কবি ও চলচ্চিত্রকার মাসুদ পথিকের জন্মদিন ট্যুরিস্ট সুবিধা বাড়াতে প্রশিক্ষণের উপর অতিরিক্ত আইজিপির গুরুত্ব আরোপ পর্যটন শিল্পের মহাপরিকল্পনা শীর্ষক সেমিনার পর্যটন পুলিশ হেডকোয়ার্টারে ৪০তম বিসিএস পুলিশ কর্মকর্তারা আজ ট্যুরিস্ট পুলিশ প্রধানের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন সাহিত্যতত্ত্বে আমার অতৃপ্তি -হাসনাইন সাজ্জাদী বিশ্বসাহিত্যে বাংলাদেশের বিজ্ঞান কবিতা আন্দোলন -হাসনাইন সাজ্জাদী ঢাকায় বসেও মন উড়ে গিয়েছিল ভার্জিনিয়ার ডিসি বইমেলায় -হাসনাইন সাজ্জাদী
আমার কবিতাভাবনা ও বিজ্ঞানকবিতা -হাসনাইন সাজ্জাদী

আমার কবিতাভাবনা ও বিজ্ঞানকবিতা -হাসনাইন সাজ্জাদী

বছরব্যাপী বিজ্ঞানবাদ

 

আমার কবিতাভাবনা ও বিজ্ঞানকবিতা ?
হাসনাইন সাজ্জাদী
।প্রাক-কথন।

এই লেখা কবিদের জন্য।তাই কবিতার বিস্তারিত ব্যাখ্যায় না গিয়ে সরাসরি বিজ্ঞান কবিতার আলোচনায় চলে আসতে চাই।মানুষের কল্যাণে মনের ভাবনাগুলোকে মুখের ভাষায় সুন্দরতম শব্দে সাবলীল উপস্থাপনকে আমি কবিতা ধরে আলোচনা করবো।কলাকৈবল্যবাদ নয়।কবিকে ক্রান্তদর্শী ও সত্যদ্রষ্টা ধরে কবির কাজকে কবিতা বলবো এই আলোচনায়।তাহলে মানুষের জন্য কবিতার ধারনা পরিষ্কার হবে।শিল্পের জন্য মানুষ নয়।আর্ট ফর আর্টও নয়।মানুষ থেকে শিল্প তাই মানুষই শিল্প।মানুষ যা কবিতা তাই হবে।তবে সুন্দর ও কল্যাণ চিন্তার মানুষকে শিল্পধারার কবি বলতে হবে।কবিতায় তাই মানুষের সমস্যার কথা যেমন থাকবে তেমনি কবি তার সমাধানও দিবেন কবিতায়। মনে করতে হবে-মানুষের চিন্তার মানসকে বিকশিত করতে আমাদের কাব্যচর্চা। সত্যসাধনার জন্য কাব্যচর্চা। দূরাগত বিপদআপদ থেকে রক্ষাকবচ এই কবিতা।তাই মানব সৃষ্ট এবং প্রকৃতির বিরূপতা থেকে পৃথিবীকে রক্ষা করাই বিজ্ঞান কবিতার বৈশিষ্ট্য হবে।মানুষ জাতির ত্রাতা হবে কবিতা।কবিতায় কবি তার জাতিকে বিজ্ঞান চেতনা দিবে এবং অকল্যাণকর কাজ করা থেকে বিরত রাখবে।কবিতা যেমন সময়কে ধরার নাম তেমনি কবিতা সৌন্দর্য চর্চাক্ষেত্র। তাই বিজ্ঞান কবিতা আমাদের জন্য অত্যাবশ্যকীয়।

বিজ্ঞান কবিতা কি ও কেন?

কবিতার উপমা,উৎপ্রেক্ষা ও চিত্রকল্পের বিজ্ঞানকেই বিজ্ঞান কবিতা বলে থাকি।কবিতার বিজ্ঞান অন্য বিষয়।হাতের আঙ্গুলে যারা ছন্দ মিলান তারা সেই ছন্দের খেলকে কবিতার বিজ্ঞান বলেন।আমি সাবলীল ছন্দে কবিতা লেখি।যাকে টানা গদ্য বা রিপোর্টিং স্টাইল বলি।আমার বিজ্ঞান কবিতা এই স্বরবৃত্ত, মাত্রাবৃত্ত বা অক্ষরবৃত্ত’র খেল নয়।আমি বলি,বিজ্ঞান চেতনায় থাকার অপর নাম বিজ্ঞান মনস্কতা।বিজ্ঞান মনস্ক কবিতাই বিজ্ঞান কবিতা।বিজ্ঞান বলছে সূর্যকে পৃথিবীকে প্রদক্ষিণরত। এখানে প্রাচীন বিশ্বাস হল- সূর্য পৃথিবী প্রদক্ষিণ করে।কেউ কবিতায় যদি প্রাচীন বিশ্বাসকে অনুসরণ করেন তবে তাকে আমরা বিজ্ঞান কবি বলবো না।আর তিনি যদি কবিতায় বিজ্ঞানের পরীক্ষিত সত্যকে অনুসরণ করে কবিতা লেখেন তবেই তিনি বিজ্ঞান কবি হবেন।কবিদের সচরাচর ভাববাদী হতে দেখা যায়। তারা নতুন ফিলসফি দিতে থাকেন।নিরীক্ষা করেন।তাদের ভক্তরা বাহবা দেন এই বলেযে,কবিতায় ফিলসফি আছে।আমাদের কথা হল এই ফিলসফি যেন বিজ্ঞানের পরীক্ষিত সত্যের বিরুদ্ধে না যায়।বিজ্ঞানের মধ্যে যেন থাকে।তাহলে কবিতা সমাজেবিজ্ঞান মানস গঠনে কাজে আসবে।আমার কবিতাভাবনা ও বিজ্ঞান কবিতা
তবে-
সব কবিতা বিজ্ঞান কবিতা নয়,
সব কবি বিজ্ঞান কবি নন
সব বিশেষ জ্ঞান বিজ্ঞান নয়
সব যুগ বিজ্ঞান যুগ নয়।

আবার বিজ্ঞান কি?

সব কবিতাই বিজ্ঞান কবিতা নয়।বিজ্ঞান বিরোধী অনেক অনেক কবিতা এবং অনেক কবি আছেন।এমন কি বিজ্ঞান বিরোধী অনেক কবির কবিতায় বিজ্ঞানও দেখতে পাওয়া যায়। কবি হিসাবে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কথা বলা যায়,তিনি ছিলেন ভাববাদী গীতি কবি।তবুও তার কিছু কিছু কবিতায় বিজ্ঞান ও আধুনিকতা রয়েছে ।তাই রবীন্দ্র যুগকে আধুনিক ২য় পর্ব ধরা যায়।প্রথম পর্বে মাইকেল মধুসূদন দত্তকে ধরতে হয়। যুগের হিসাবে ত্রিশের পঞ্চ কবিকে আধুনিকতাবাদী কবি ধরলেও আধুনিক কবিতায় তারা তৃতীয় পর্ব।চতুর্থ ও শেষপর্ব হল আবুল হোসেন,সৈয়দ আলী আহসান, শামসুর রাহমান, সুনীল, সৈয়দ হকদের পর্ব।তারপর উত্তর আধুনিক বা আধুনিক উত্তর কাব্য চর্চা হয়েছে।আশির দশকে আমি বিজ্ঞান যুগে বিজ্ঞান কবিতার চর্চা শুরু করি এবং এ বিষয়ে তত্ত্ব উপস্থাপন করি।বই পুস্তক রচনা করি।তখনই প্রশ্ন ওঠে বিজ্ঞান যুগ হতে পারে না কিংবা সকল যুগই বিজ্ঞান যুগ।তার জবাবও আমি দিয়েছি।বর্তমান যুগ কেন বিজ্ঞান যুগ এবং প্রাচীন যুগ,মধ্য যুগ ও আধুনিক যুগে বিজ্ঞান কবিতা লিখে কেন তারা বিজ্ঞান কবি হবেন না,তার সবই জবাব আমার বই পুস্তকে আছে।এখানে ক্ষুদ্র পরিষরে তার উল্লেখ করার সময় আপাতত নেই।পরে সুযোগ সময় আসলে তার জবাব দেব।শুধু বলবো বিজ্ঞান কবি হতে হলে বিজ্ঞান যুগের বিশ্বাসকে মনে ধারণ করতে হবে।সংস্কারমুক্ত হতে হবে।ধর্ম নিরপেক্ষ হতে হবে।এককথায় হানড্রেড পার্সেন্ট বিজ্ঞানমনস্ক না হয়ে বিজ্ঞান কবি হ্ব্যা যাবে না।
তাই সকল যুগ বিজ্ঞান যুগ নয়।বিজ্ঞান কবিতা লিখেও সবাই বিজ্ঞান কবি নয় আবার বর্তমান যুগেও কেউ কেউ বিজ্ঞান বিরোধী কবিতা লিখছেন। তাই কবিতা মানেই বিজ্ঞান নয় বা সকল কবিতায় বিজ্ঞান থাকার কথাও সত্যি নয়।
এখন মূল প্রশ্ন বিজ্ঞান কি বা বিজ্ঞান কবিতা কি?
আমাকে একজন নামধারী ডক্টর কিছুদিন আগে প্রশ্ন করেছেন – বিজ্ঞান বলতে আপনি কি বুঝেন?তার প্রশ্নের ধরণে ঠাট্টার আভাষ ছিল।এরকম অনেক ঠাট্টার মুখোমুখি অতীতেও আমি হয়েছি। ব্যস্ততায় তাৎক্ষণিক উত্তর দিতে পারিনাই।তার উত্তর আমার বই পুস্তকে আছে।’বিজ্ঞান কবিতার রূপরেখা’,বিজ্ঞানবাদ’,’জাপানে বঙ্গবিদ্যা ও বাংলাদেশের বিজ্ঞান কবিতা’, বিজ্ঞানবাদের কাব্যতত্ত্ব’,বিজ্ঞান শিক্ষা সম্প্রীতি’,’ এবং ‘হে স্বপ হে বিজ্ঞান কবিতা’,’কবিতাবিজ্ঞান’ এবং ভারত থেকে সম্প্রতি প্রকাশিত আমার লেখা ‘কবিতায় বিজ্ঞান অ-বিজ্ঞান’ – এ ক্ষেত্রে ভাল গ্রন্থ।যার পাঠ সহজবোধ্য। এমনকি গবেষক বায়েজীদ মাহমুদ ফয়সল সাহেবের লেখা’ বাংলাসাহিত্যে সিলেটিদের গৌরবগাথা’ গ্রন্থটিও আমাকে ব্যাখা করে সহজবোধ্য করেছে।সেগুলো একটু ঝালাই করে নিয়ে উত্তর দেয়ার এখনো সুযোগ হয়নি।তবুও বলছি;
অনেকে বলেন সব বিশেষ জ্ঞানই বিজ্ঞান।আমি বলি বিজ্ঞানের সাথে সাংঘর্ষিক নয় এবং যা পরীক্ষিত সত্য তার বিশেষ জ্ঞানই বিজ্ঞান।এ পরীক্ষা হবে সেই বিজ্ঞানের আলোকে এবং তা চিকিৎসা বিজ্ঞান, মহাকাশ বিজ্ঞান, পদার্থ বিজ্ঞান,রসায়ন বিদ্যা ও বিবর্তনবাদের আলোকে পরীক্ষা-নীরিক্ষা উত্তীর্ণ। ভাব ও বিশ্বাস নিয়ে চেতনা হয়।আর এর সমন্বয়ে হয় মনস্কতা।বিজ্ঞানের আরো ভাগ আছে।তবে সমাজ বিজ্ঞান,ধর্ম বিজ্ঞান,মানব বিজ্ঞান,কৃষি বিজ্ঞান,রাষ্ট্র বিজ্ঞান,গার্হস্থ্য বিজ্ঞান, ভাষা বিজ্ঞান ও কবিতার ছন্দ বিজ্ঞান দিয়ে বিজ্ঞান চেতনা ও বিজ্ঞান মনস্কতা হয় না।কারণ এগুলোর সবকিছু বিজ্ঞানাগারে পরীক্ষা-নীরিক্ষা উত্তীর্ণ নয় এবং কৃষি বিজ্ঞান ছাড়া তার প্রায় সবই দর্শন ও মতবাদ নির্ভর।
কোন কোন দর্শন ও মতবাদ সরাসরি বিজ্ঞানের সাথে সাংঘর্ষিক হতেও দেখা যায়।মার্কবাদ অনেকাংশেই বিজ্ঞানমনস্ক তবে কোন কোন ক্ষত্রে তা মানবতার সীমানাকে আঘাত করেছে।এ ক্ষেত্রে সাম্যবাদ অনেকটাই ভাল এবং আমি বিজ্ঞানবাদ নামে যে তত্ত্ব উপস্থাপন করেছি-তাতে সমিতিভিত্তিক অর্থব্যবস্থা রাখা হয়েছে।চলমান সম্পদকে আমি বর্তমান মালিক,শ্রমিক ও সরকারের মধ্যে সমান তিন ভাগ করেছি।যা গরীবের পুঁজিবাদ ও ধনীর ক্ষেত্রে সমাজতন্ত্র বলা যাবে।আমার লেখা ছোটদের বিজ্ঞানবাদ দ্রষ্টব্য। বিজ্ঞানবাদ,বিজ্ঞানশিল্পতত্ত্ব, বিজ্ঞানকাব্যতত্ত্ব ও সাবলীল ছন্দ প্রভৃতি আমার জীবন দর্শন।এই দর্শনের আলোকে সমাজ প্রতিষ্ঠা ও কাব্যচর্চা হোক আমি চাই।এটাকেই আমি আমার বিজ্ঞান স্বপ্ন বলি।

এই সংবাদটি শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




themesbazar_brekingnews1*5k
© All rights reserved © 2020
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Jp Host BD